BD Fake Smart NID Card Maker । নকল ভোটার আইডি কার্ড তৈরি করুন । OnlineNational Id Card maker |

আপনি নিজের তৈরি করতে পারেন
NID পারেন।

BD Fake Smart NID Card Maker । নকল ভোটার আইডি কার্ড তৈরি করুন । OnlineNational Id Card maker |


সতর্কতা:

জাল এনআইডি কার্ডের ছবি এই ফর্মটি পূরণ করে আপনি একটি জাল বাংলাদেশী জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করতে পারেন। কিন্তু অনুগ্রহ করে এটি একটি অবৈধ কার্যকলাপ ব্যবহার করবেন না. বেশিরভাগ লোকেরা এটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট যাচাইয়ের জন্য ব্যবহার করে। কিন্তু আমরা তা করি না

সুপারিশ

আপনি যদি একজন বাংলাদেশী ফেসবুক ব্যবহারকারী হন এবং আপনার ফেসবুক আইডি ব্লক হয়ে থাকে তাহলে ফেক এনআইডি কার্ডটি আপনার জন্য। অনেকে বিভিন্ন উদ্দেশ্যে ফেসবুক থেকে ব্লক হয়ে যায়। ওদের এটা দরকার এনআইডি কার্ড দিয়ে তাদের অ্যাকাউন্ট যাচাই করুন।

কিন্তু আপনার বয়স কি ১৮ বছরের কম? অপ্স! দুর্ভাগ্যবশত আপনার একটি NID কার্ড নেই. তোমার এখন কি করা উচিত? চিন্তা করবেন না। আপনি BD NID ব্যবহার করে একটি অস্থায়ী এবং জাল NID কার্ড তৈরি করতে পারেন কার্ড মেকার টুল।
 
শুধু আপনার তথ্য ইনপুট এবং কার্ড তৈরি. এটা ছাপাও. প্লাস্টিকের মত ঢেকে দিন জাতীয় আইডি কার্ড.এই কভার কার্ডের ফটো ক্যাপচার করুন। ফেসবুকে জমা দিন। কিন্তু কারো ক্ষতি বা কোনো বেআইনি কার্যকলাপের জন্য এটি ব্যবহার করবেন না। হাতে, আপনি কি 18 বছরের বেশি বয়সী? কিন্তু জাতীয় পরিচয়পত্র নেই?

 
চিন্তা করবেন না। শুধু NID কার্ডের একটি অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে যান। কিন্তু আপনি যদি না করেন একটি অনলাইন আইডি কার্ড আছে তারপর উপরের সিস্টেম অনুসরণ করুন. আমরা কিভাবে আপনার ডেটা প্রক্রিয়া করব?

আমরা ট্রিকব্লগবিডি আপনার ডেটা সম্পর্কে খুব সতর্ক। তাই আমরা এখানে এটি প্রকাশ. আপনি জমা ক্লিক করলে আপনি একটি নতুন ওয়েবসাইটে পুনঃনির্দেশিত হবেন। তাদের উপর আমাদের নিয়ন্ত্রণ নেই। অনুগ্রহ করে তাদের গোপনীয়তা নীতিও পড়ুন।

দাবিত্যাগ এবং গোপনীয়তা

বিডি জাল এনআইডি কার্ড শুধুমাত্র

ফেসবুক অ্যাকাউন্ট যাচাইয়ের জন্য ব্যবহার করার জন্য দেওয়া হয়। এটি অবৈধ কার্যকলাপের জন্য ব্যবহার করবেন না। এই এনআইডি কার্ডের মাধ্যমে কোনো ধরনের বেআইনি কার্যকলাপের জন্য দায়ী নয়। ফর্ম জমা দেওয়ার পর আপনি অন্য সাইটে যাবেন। । সুতরাং, আমরা কোন গ্যারান্টি দিতে পারি না আপনার গোপনীয়তা। আপনি এটা সম্পর্কে সতর্ক হতে হবে. নিজ ঝুঁকিতে এটি ব্যবহার করুন। আমাদের দাবিত্যাগ এবং গোপনীয়তা নীতি সম্পর্কে আরও জানতে আপনি এই দুটি পৃষ্ঠায় যেতে পারেন।

আপনি যদি বর্তমানে বাংলাদেশের লাঞ্চ করা নতুন স্মার্ট এনআইডি কার্ড তৈরি করতে চান; আপনার ফেসবুক আইডি ভেরিফিকেশন এর জন্য; তাহলে নিচের দেয়া লিঙ্ক ব্যবহার করুন।

কারণ আইডি ভেরিফিকেশন এর ক্ষেত্রে হয়তো পূর্বের যে এনআইডি কার্ড ফরমেট রয়েছে সেটি কাজ নাও করতে পারে; এক্ষেত্রে আপনাকে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে Smart NID card তৈরি করতে হবে।

এই কার্ড ব্যবহারের কিছু সতর্কতাঃ

  • প্রথমে একটি বিষয় জেনে রাখা দরকার সেটি হলো আপনি এই কার্ডটি শুধুমাত্র ফেইসবুক ভেরিফিকেশন কিংবা অন্য যে কোনো রকমের সোসিয়াল ভেরিফিকেশনের কাজে ব্যবহার করতে পারবেন।
  • এই কার্ডটি জাতীয় পর্যায়ের কোনো কাজে কিংবা অভ্যন্তরীণ কোন কাজে ব্যবহার করা যাবে না।
  • এই কার্ডটি শুধুমাত্র তৈরি করা হয়েছে ফেসবুক একাউন্ট ভেরিফাই করার জন্য আমি আবারও বলছি এই কার্ড শুধুমাত্র তৈরি করা হবে ফেসবুক আইডি কিংবা অন্যান্য যেকোন সোসিয়াল গণমাধ্যম এর প্রোফাইল ভেরিফাই করার জন্য যদি আপনার এনআইডি কার্ড না থাকে।
  • এছাড়াও আপনার যদি কোন সোসিয়াল প্রোফাইল লক হয়ে যায় তাহলে আপনি এই কার্ড ব্যবহার করার মাধ্যমে সেটি আনলক করতে পারবেন।
  • এটি যদি আপনি দেশের অভ্যন্তরীণ কোনো কাজে ব্যবহার করেন এবং কোনো রকমের ঝামেলার সম্মুখীন হন তাহলে ওয়েবসাইট কর্তৃপক্ষ কোন ভাবে দায়ী নয়।

সেজন্য কার্ডটি ব্যবহার করার পূর্বে অবশ্যই আপনার ভবিষ্যৎ সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিন, কারণ এই কার্ড আপনি যদি কোন খারাপ কাজে ব্যবহার করেন তাহলে এই কাজের মাশুল আপনাকে গুনতে হবে। এতে আপনার জেল-জরিমানা হওয়ার সম্ভাবনা শতভাগ।

এই আইডি কার্ড কি কি কাজে ব্যবহার করবেন?

আপনি চাইলে এই এনআইডি কার্ড ব্যবহার করার মাধ্যমে ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট রিলেটেড এর বিভিন্ন রকমের কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারবেন।

আপনি চাইলে এই আইডি কার্ড দিয়ে আপনি চাইলে বিভিন্ন সোশ্যাল গণমাধ্যমে যে সমস্ত ভেরিফিকেশন রিলেটেড সমস্যা রয়েছে, সে সমস্ত ভেরিফিকেশন রিলেটেড সমস্যা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পেতে পারেন। কারণ অনেক সময় দেখা যায়, বিভিন্ন সোশ্যাল গণমাধ্যমে বেশি পরিমাণে রিপোর্ট পড়ার কারণে আপনার সোশ্যাল গণমাধ্যম একাউন্টে নানা রকমের জটিলতা দেখা দেয়।

আর আপনি যদি এই সমস্ত জটিলতা থেকে মুক্তি পেতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই আপনার নেশনাল আইডি কার্ড রিলেটেড কোন একটি ডকুমেন্ট প্রভাইড করতে হয়। কিন্তু আপনি যদি একটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট কিংবা অন্য যে কোনও সোশাল গণমাধ্যমের একাউন্ট, ভুয়া ইনফরমেশন দিয়ে তৈরি করেন তাহলে এই অ্যাকাউন্টের তথ্য হয়তো আপনি খুঁজে নাও পেতে পারেন।

ক্ষেত্রে আপনি চাইলে আপনার নিজস্ব তথ্য অনুযায়ী মনগড়া একটি আইডি কার্ড তৈরি করতে পারবেন এবং এটি দিয়ে আপনার একাউন্ট ভেরিফাই এবং একাউন্ট পুনরুদ্ধার করতে পারবেন। তবে এই আইডি কার্ড ব্যবহার করার ক্ষেত্রে অবশ্যই একটি বিষয়ে লক্ষ্য রাখবেন আর সেটি হলো এই আইডি কার্ড কখনোই কোনো সামাজিক কার্যক্রম সাধন করার লক্ষ্যে ব্যবহার করা যাবে না।

কারণ এটি যদি আপনি দেশীয় অভ্যন্তরে কোন একটি কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য সঠিক তথ্য হিসেবে ব্যবহার করতে চান তাহলে, বিভিন্ন রকমের আইনি জটিলতার মধ্যে পড়তে পারেন। এ ক্ষেত্রে আইনি জটিলতা থেকে আপনি যদি মুক্তি পেতে চান এবং এই সংক্রান্ত যে কোন সমস্যা থেকে আপনি যদি মুক্তি পেতে চান, তাহলে অবশ্যই সৎ ভাবে এই কার্ডটি ব্যবহার করবেন।

আর আপনি যদি এই কার্ডটি অসৎ উদ্দেশ্যে ব্যবহার করেন তাহলে এই কার্ড অসৎ উদ্দেশ্যে ব্যবহার করার ফলে যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হতে পারে, সেই মামলার ভাগীদার কিন্তু আপনি হবেন।

কার্ডটি কিভাবে ডাউনলোড করবেন?

আপনি যদি এই কার্ডটি ডাউনলোড করতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমত উপরে উল্লেখিত যে সমস্ত বক্স রয়েছে সে সমস্ত বক্স পরিপূর্ণভাবে ফিলাপ করে নিতে হবে।

যখনই আপনি আপনার অ্যাকাউন্ট রিলেটেড অল ইনফরমেশন দিয়ে সমস্ত বক্স গুলো পূরণ করে নিবেন, তখন আপনাকে নিচে থাকা “Submit” বাটন এর উপরে ক্লিক করতে হবে।

কিভাবে একটি ফেইক স্মার্ট কার্ড তৈরি করবেন।

প্রথমে গুগোলে সার্চ করে অথবা আমাদের এই লিংক থেকে ওয়েব সাইটটিতে প্রবেশ করুন । নিচের স্ক্রীনশট গুলো ফলো করে । খুব সহজেই আপনার ডাটা সাবমিট করে । একটা ফেইক স্মার্ট কার্ড তৈরি করে ফেলতে পারেন কয়েক মুহূর্ত । ( Website Link )
01 > স্টেপ - প্রথমে ওয়েব পেজ টি তে ভিজিট করুন । তারপর এখানে ফরমটি পূরণ করুন।

02 > স্টেপ - এবার সঠিক নিয়মে ডাটাগুলো সাবমিট করুন । অতঃপর ইমেজ টি সিলেক্ট করে দিন।

03 > স্টেপ - ক্রিয়েট কার্ড এখানে ক্লিক করুন । 

04 > স্টেপ -এবার রেডি হয়ে গেল কার । এবারে স্ক্রল ডাউন করে নিচে যান ।

05 > স্টেপ - এবার ডাউনলোড করুন । ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করুন।

06 > স্টেপ - এবার পিছনের পেজ তৈরি করুন । উপরে পিছনের পেজ টি সিলেক্ট করুন । এখানেও সম্পূর্ণ ফরমটি পূরণ করুন । 

07 > স্টেপ - এবার ক্রিয়েট এ কার্ড বাটনে ক্লিক করুন । 

08 > স্টেপ - এবার রেডি হয়ে গেল পিছনের পেজটি । নিচে স্ক্রল করে ডাউনলোড করুন ।

09 > স্টেপ - এবার ইমেজটি ডাউনলোড করুন ।

হয়ে গেল সফলভাবে ফেইক আইডি কার্ড তৈরি করা। যদি পোস্টটি ভাল লাগে তাহলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না। আর আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব । 

কিভাবে অনলাইন থেকে,স্মার্ট কার্ড  বা আইডি কার্ড ,ডাউনলোড করবেন । যা দিয়ে সবকিছু করতে পারেন । অনলাইন থেকে ডাউনলোড করে । আসুন দেখে নেওয়া যাক, কীভাবে ডাউনলোড করবেন ।অনলাইন থেকে ডাউনলোড করার জন্য কয়টা পদ্ধতি রয়েছে । কিসের মাধ্যমে অনলাইন থেকে । আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে চান । 

ভোটার নিবন্ধন করার সময়,ছবি তোলা শেষ হলে। একটা স্লিপ আপনাকে দিয়ে দেয় । ওই স্লিপ নাম্বার দিয়ে, আইডি কার্ড ডাউনলোড ,করতে পারেন অনলাইন থেকে । জাতীয় পরিচয় পত্র নিবন্ধন করার সময় । একটা ফোন নাম্বার ব্যবহার করতে হয় । ফোন নম্বরে, এসএমএস এর মাধ্যমে । আপনার স্মার্ট কার্ড নাম্বারটি দিয়ে দেয়া হয়। আপনি ওই নম্বর ব্যবহার করেও রেজিস্ট্রেশন করে ,আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারেন। 

Post a Comment

মূল্যবান মতামতের জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ

Previous Post Next Post